অস্ট্রেলিয়ায় ঢুকতে পারলেন না জকোভিচ

অস্ট্রেলিয়ান সরকারের করোনার কঠোর বিধিনিষেধের কাছে শেষ পর্যন্ত হার মানতে হলো বিশ্বের এক নম্বর টেনিস তারকা নোভাক জকোভিচকে। অস্ট্রেলিয়ায় প্রবেশের প্রয়োজনীয় করোনা প্রতিষেধক সংক্রান্ত কাগজ পত্র দেখাতে ব্যর্থ হওয়ায় জকোভিচকে মেলবোর্ন বিমানবন্দরে কয়েক ঘন্টা অপেক্ষায় রাখা হয়। শেষ পর্যন্ত বিশেষ ব্যবস্থায় তাকে সরকারী এক হোটেলে রাখা হয়। ইতোমধ্যেই তার ভিসাও বাতিল করা হয়েছে এবং তাকে দেশে ফিরে যেতে হচ্ছে বলে একটি সূত্র নিশ্চিত করেছে। 
অস্ট্রেলিয়ান ওপেনে খেলার উদ্দেশ্যে করোনার প্রতিষেধক টিকা না নিয়ে বিশেষ মেডিকেল প্যানেলের ছাড়পত্র নিয়ে জকোভিচ মেলবোর্নে খেলতে এসেছিলেন। কিন্তু ডাবল ভ্যাক্সিন না থাকলে বিশ্বের যেকোন দেশ থেকে কেউই অস্ট্রেলিয়ায় প্রবেশ করতে পারবেন না, অস্ট্রেলিয়ান প্রধানমন্ত্রী স্কট মরিসনের এই কঠোর হুঁশিয়ারী থেকে জকোভিচও ছাড় পেলেন না। জকোভিচের ব্যপারে মরিসন স্পস্ট করে জানিয়ে দিয়েছেন, ‘আইন আইনই, যা সবার জন্য প্রযোজ্য। এখানে বিশেষ কেস বলে কিছু নেই।’
৩৪ বছর বয়সী জকোভিচ অস্ট্রেলিয়ায় প্রবেশের জন্য প্রয়োজনীয় ভ্যাক্সিন সার্টিফিকেটসহ অন্যান্য বেশ কিছু তথ্যাদি দেখাতে ব্যর্থ হন। এর আগে তিনি করোনায় আক্রান্ত হয়েছিলেন। আগামী ১৭ জানুয়ারি থেকে মেলবোর্নে শুরু হওয়া অস্ট্রেলিয়ান ওপেনে অংশ নিতে হলে আয়োজকদের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছিল প্রত্যেককে অবশ্যই দুই ডোজ প্রতিষেধক টিকা নিতে হবে। কিন্তা তারপরেও মেডিকেল প্যানেলের বিশেষ ছাড়পত্র নিয়ে জকোভিচ অস্ট্রেলিয়ায় রওয়ানা হন। বিশেষ ব্যবস্থায় যারাই ছাড়পত্র পাবেন তাদের বিষয়টি দুটি বিশেষজ্ঞ প্যানেলের পর্যবেক্ষনের পরেই চূড়ান্ত করা হবে। 
ভ্যাক্সিন গ্রহনে সবসময়ই অনীহা প্রকাশ করা জকোভিচকে নিয়ে গত এক মাস ধরেই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আলোচনা ছিল, আদৌ তিনি শিরোপা ধরে রাখতে খেলার অনুমতি পাবেন কিনা। 
বিশেষ ক্ষেত্রে নিয়মের ব্যত্যয় করা হবে কিনা, এ নিয়েও বিতর্ক তৈরি হয়। প্রধানমন্ত্রী স্পষ্টভাবে জানিয়ে দেন, কিসের ভিত্তিতে ওই মেডিকেল প্যানেল জোকোভিচকে ছাড়পত্র দিয়েছে, সেটি আগে জানতে হবে। সেই জবাব অস্ট্রেলীয় ইমিগ্রেশনের কাছে গ্রহণযোগ্য না হলে দেশে ফেরত যেতে হবে বিশ্বের এক নম্বর টেনিস তারকাকে।
অস্ট্রেলীয় সংবাদপত্র ‘দ্য এজ’ জানিয়েছে, জোকোভিচের ভিসা সংক্রান্ত জটিলতায় তাঁকে মেলবোর্ন বিমানবন্দর থেকে বের হতে দেওয়া হয়নি।
মেলবোর্ন বিমানবন্দরের একজন ইমিগ্রেশন কর্মকর্তা জানিয়েছেন, ‘অস্ট্রেলিয়াতে প্রবেশের জন্য প্রয়োজনীয় যেসব কাগজপত্র দেখাতে হয় জোকোভিচ সেগুলো দেখাতে ব্যর্থ হয়েছেন। সুতরাং স্বয়ংক্রিয়ভাবেই তাঁর প্রবেশ ভিসা বাতিল হয়ে গেছে। বিদেশি নাগরিকদের মধ্যে যাদের ভিসা থাকবে না কিংবা যাদের ভিসা বাতিল করা হবে, তারা অস্ট্রেলিয়াতে ঢুকতে পারবে না। তাদের আটক করা হবে এবং নিজেদের দেশে ফেরত পাঠানোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’
অস্ট্রেলিয়ান ওপেন প্রধান ক্রেইগ টিলে জানিয়েছেন জকোভিচকে বিশেষ কোন সুবিধা দেয়া হয়নি। তিন হাজার খেলোয়াড় ও সাপোর্ট স্টাফের মধ্যে মাত্র ২৬ জন বিশেষ মেডিকেল ছাড়পত্রের জন্য আবেদন করেছিল। তার মধ্যে কয়েকজনকে বিশেষ বিবেচনায় এই ছাড়পত্র দেয়া হয়েছে। 
এদিকে সিডনি মর্নিং হেরাল্ডের রিপোর্টের সূত্রমতে জানা গেছে ভিসা বাতিলের বিপক্ষে সার্বিয়ান এই তারকা আইনি পদক্ষেপ নেবার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। 

খেলা এর আরো খবর