করোনার টিকা: ৩ মাসে ফাইজারের মুনাফা ৪৯০ কোটি ডলার

মার্কিন ফার্মাসিউটিক্যাল জায়ান্ট ফাইজার কোভিড-১৯ টিকার ওপর ভর করে চলতি বছরের প্রথম প্রান্তিকে (জানুয়ারি-মার্চ) তিন মাসেই ৪৯০ কোটি ডলার মুনাফার কথা জানিয়েছে। টিকার দৃঢ় চাহিদার জন্য নাটকীয়ভাবে সংস্থাটি ২০২১ সালের মুনাফার পূর্বাভাস বাড়িয়েছে।
 
জার্মান অংশীদার বায়োএনটেকের সঙ্গে মিলে ফাইজার কোভিড-১৯ টিকা উৎপাদন করছে। এ টিকা ও আগামী তিন বছরে বার্ষিক বুস্টার ডোজ থেকে সংস্থাটি শক্তিশালী আয়ের প্রত্যাশা করছে।
 
ভায়াগ্রা ও লিপিটরের মতো ব্লকবাস্টার চিকিৎসার জন্য বিপণন সংস্থা হিসেবে কাজ করতো ফাইজার। এক দশক আগে নেয়া নতুন ব্যবসায়িক নীতিতে সংস্থাটি ক্যান্সার ও বিরল রোগের ওষুধ এবং টিকা তৈরিতে নিজেকে পাওয়ার হাউজে রূপান্তর করে। মঙ্গলবার (৪ মে) ফাইজার চলতি বছর কোভিড-১৯ টিকা বিক্রির পূর্বাভাসকে প্রায় দ্বিগুণ করেছে। এ সময়ে সংস্থাটি টিকা বিক্রি থেকে আয়ের পূর্বাভাস ১ হাজার ৫০০ কোটি থেকে ২ হাজার ৬০০ কোটি ডলারে উন্নীত করেছে।
 
অংশীদাররা আশা করছে, এ বছর সংস্থাটি ২৫০ কোটি ডোজ টিকা সরবরাহ করতে সক্ষম হবে। এর মধ্যে ৩০ কোটি ডোজই যুক্তরাষ্ট্রের জন্য। এরই মধ্যে সংস্থাটি বার্ষিক বুস্টার ডোজ তৈরির জন্যও প্রস্তুতি নিচ্ছে। জানুয়ারি থেকে মার্চ সময়কালে সংস্থাটির নিট আয় হয়েছে ৪৮৮ কোটি ডলার। শেয়ারপ্রতি এ আয় ৮৬ সেন্ট। যেখানে গত বছরের একই সময়ে সংস্থাটির নিট আয় ছিল ৩৩৬ কোটি ডলার কিংবা শেয়ারপ্রতি ৬০ সেন্ট।

আন্তর্জাতিক এর আরো খবর