জিডিপি প্রবৃদ্ধি হতে পারে ৬ দশমিক ৪ শতাংশ

চলতি ২০২১-২২ অর্থবছরে বাংলাদেশের মোট দেশজ উৎপাদন (জিডিপি) ৬ দশমিক ৪ শতাংশ বাড়তে পারে বলে পূর্বাভাস দিয়েছে বিশ্ব ব্যাংক। বৃহস্পতিবার ‘শিফটিং গিয়ার্স: ডিজিটাইজেশন অ্যান্ড সার্ভিস লেড ডেভেলপমেন্ট’ শীর্ষক ষাণ্মাসিক প্রতিবেদনে এ ভবিষ্যদ্বাণী করা হয়। এতে বলা হয়, মহামারীর ধাক্কা সামলে রপ্তানি এবং ভোগ ব্যয় বাড়তে শুরু করায় প্রবৃদ্ধিও বাড়ছে। চলতি ২০২১-২২ অর্থবছরে সরকার ৭ দশমিক ২ শতাংশ জিডিপি প্রবৃদ্ধির লক্ষ্যমাত্রা ধরেছে। আর এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক-এডিবির হিসাবে এই প্রবৃদ্ধি হতে পারে ৬ দশমিক ৮ শতাংশ। এদিকে প্রতিবেদনে গত ২০২০-২১ অর্থবছরে বাংলাদেশের জিডিপি প্রবৃদ্ধি প্রাক্কলন করা হয়েছে ৫ শতাংশ। তবে বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর হিসাবে তা ৫ দশমিক ৪৭ শতাংশ। অর্থনীতির পুনরুদ্ধারের বর্তমান গতি অব্যাহত থাকলে আগামী ২০২২-২৩ অর্থবছরে বাংলাদেশের জিডিপি প্রবৃদ্ধি বেড়ে ৬ দশমিক ৯ শতাংশ হতে পারে বলে পূর্বাভাস দিয়েছে বিশ্ব ব্যাংক। বিশ্ব ব্যাংকের প্রাক্কলন বলছে, ২০২১ ও ২০২২ সালে এ অঞ্চলের অর্থনীতি ৭ দশমিক ১ শতাংশ বাড়তে পারে। তবে দেশভেদে এই প্রবৃদ্ধি সমান হবে না। মহামারীর ধাক্কায় ভারতের অর্থনীতি ২০২০-২১ অর্থবছরে ৭ দশমিক ৩ শতাংশ সংকুচিত হয়ে পড়েছিল। সরকারি বিনিয়োগ ও প্রণোদনা সুবিধা প্রদানে এবার ৮ দশমিক ৩ শতাংশ প্রবৃদ্ধি হতে পারে। পর্যটন নির্ভর মালদ্বীপের অর্থনীতি সংকুচিত হয়েছিল ৩৩ দশমিক ৩ শতাংশ। সংক্রমণ কমে পর্যটনে গতি আসায় এ বছর ২২ দশমিক ৩ শতাংশ প্রবৃদ্ধি দেখতে পারে দেশটির জিডিপি। এছাড়া ভুটান এ অর্থবছরে ৩ দশমিক ৬ শতাংশ, নেপাল ৩ দশমিক ৯ শতাংশ এবং পাকিস্তান ৩ দশমিক ৪ শতাংশ প্রবৃদ্ধি পেতে পারে।

অর্থ ও বাণিজ্য এর আরো খবর