সুরস্রষ্টা আলতাফ মাহমুদের অন্তর্ধান দিবস আজ

'আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো একুশে ফেব্রুয়ারি' গানের সুরস্রষ্টা আলতাফ মাহমুদের অন্তর্ধান দিবস আজ। মুক্তিযুদ্ধের সময় ঢাকার আউটার সার্কুলার রোডের নিজ বাসায় মুক্তিযোদ্ধাদের নিয়ে গোপন ক্যাম্প স্থাপন করেছিলেন তিনি। পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী কয়েকজন গেরিলা মুক্তিযোদ্ধাসহ আলতাফ মাহমুদকে ৩০ আগস্ট ওই বাসা থেকে তুলে নিয়ে যায়। এরপর দেশপ্রেমিক গুণী এ সংগীতজ্ঞের আর খোঁজ মেলেনি।
 
আলতাফ মাহমুদ পরিচিত মহলে ঝিলু নামেও পরিচিত। একাধারে তিনি ছিলেন কবি, সুরকার, গীতিকার, সংগীত পরিচালক এবং প্রযোজক। তিনি ছিলেন গেরিলা অধিনায়কও। ১৯৩৩ সালের ২৩ ডিসেম্বর বরিশালের মুলাদী উপজেলার পাতারচর গ্রামে তার জন্ম।
১৯৫০ সালের দিকে ভাষা আন্দোলনের পক্ষে সমর্থন আদায়ের জন্য বিভিন্ন জায়গায় গণসংগীত পরিবেশন করেন তিনি। এরপর ১৯৭১ সালে স্বাধীনতা যুদ্ধে অংশ নেন, ছিলেন ক্র্যাক প্লাটুনের সক্রিয় যোদ্ধা। ১৯৬৫ সালের দিকে আলতাফ মাহমুদ করাচি থেকে ঢাকায় ফিরে চলচ্চিত্রের সংগীত পরিচালনার কাজে মনোনিবেশ করেন।
 
আলতাফ মাহমুদ ১৯টি চলচ্চিত্রে কাজ করেছেন। এর মধ্যে বিখ্যাত চলচ্চিত্রগুলো হলো ‘জীবন থেকে নেয়া’, ‘ক্যায়সে কাহু’, ‘কার বউ’, ‘তানহা’, ‘বেহুলা’, ‘আগুন নিয়ে খেলা’, ‘দুই ভাই’, ‘সংসার’, ‘আঁকাবাঁকা’, ‘আদর্শ ছাপাখানা’, ‘নয়নতারা’, ‘শপথ নিলাম’, ‘প্রতিশোধ’, ‘কখগঘঙ’, ‘কুচবরণ কন্যা’, ‘সুযোরাণী দুয়োরাণী’, ‘আপন দুলাল’, ‘সপ্তডিঙ্গা’ প্রভৃতি।
 
দেশের সংস্কৃতি চর্চা ও মুক্তিযুদ্ধে অসামান্য অবদানের জন্য ১৯৭৭ সালে সরকার তাকে মরণোত্তর একুশে পদকে ভূষিত করে। ২০০৪ সালে সংস্কৃতি ক্ষেত্রে অসামান্য আবদান রাখায় শহীদ আলতাফ মাহমুদকে স্বাধীনতা পুরস্কার (মরণোত্তর) দেওয়া হয়।

সর্বশেষ সংবাদ