ঢাবি ছাত্রী ধর্ষণ : ২৮ জানুয়ারি প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ

রাজধানীর কুর্মিটোলায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) শিক্ষার্থী ধর্ষণের মামলার তদন্ত প্রতিবেদন আগামী ২৮ জানুয়ারি দাখিলের নির্দেশ দিয়েছে আদালত। মঙ্গলবার ঢাকা মহনগর হাকিম বেগম ইয়াসমিন আরা মামলার এজাহার গ্রহণ করে এ নির্দেশ দেন।
 
এর আগে ঘটনার দিন রাতেই ক্যান্টনমেন্ট থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেন ভুক্তভোগী শিক্ষার্থীর বাবা। যাচাই শেষে গতকাল সোমবার অভিযোগটি মামলা হিসেবে গ্রহণ করা হয়। মামলায় অজ্ঞাত একজনকেই আসামি করা হয়েছে।
 
মামলাটি তদন্তে প্রথমে ক্যান্টনম্যান্ট থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মনিরুজ্জামানকে দায়িত্ব দেওয়া হয়। পরে মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) কাছে তদন্তভার হস্তান্তর করা হয়। কিন্তু মামলাটি তদন্তে ডিবি পুলিশের কোন কর্মকর্তা দায়িত্ব পেয়েছেন এ জানাতে পারেনি পুলিশের অপরাধ, তথ্য ও প্রসিকিউশন বিভাগ।
 
সিএমএম আদালতে ক্যান্টনম্যান্ট থানার সাধারণ নিবন্ধন কর্মকর্তা এসআই দীপক কুমার মিত্র দীপু গণমাধ্যম জানান, আদালতে পাঠানো নথিতে আগের তদন্ত কর্মকর্তার নামই রয়েছে। তবে ডিবির কোন কর্মকর্তার উপর তদন্তভার পড়েছে তা তারা জানেন না।
 
এদিকে ধর্ষণের শিকার ঢাবি ছাত্রী তার ধর্ষককে দেখলে চিনতে পারবে বলে জানিয়েছেন মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান নাসিমা বেগম। আজ ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে ঢাবির ওই শিক্ষার্থীকে দেখতে গিয়ে এ কথা জানান তিনি।
 
এ সময় ভুক্তেভোগী ছাত্রীর সাহস ও বুদ্ধিমত্তার প্রশংসা করে নাসিমা বেগম বলেন, ‘আমরা ওর সাথে কথা বললাম, দেখলাম যে এই মেয়েটি অত্যন্ত সাহসী, সে সাহসের পরিচয় দিয়েছে। সে যেহেতু আসামির চেহারার একটি বর্ণনা দিতে পারছে, অবিলম্বে একটি স্কেচ এঁকে আসামি শনাক্ত ও গ্রেপ্তার করার ব্যবস্থা যাতে করা হয় সেটা আমি বলেছি।’
 
ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ বলছে, ভুক্তভোগী ওই ছাত্রীর শারীরিক অবস্থার উন্নতি হচ্ছে। সাত সদস্যের মেডিকেল বোর্ড চাইলে দুই-তিন দিনের মধ্যে তাকে ছাড়পত্র দেওয়া যেতে পারে।
 
রোববার সন্ধ্যায় শেওড়ায় বান্ধবীর বাসায় যাওয়ার পথে ভুলে কুর্মিটোলায় বিমানবন্দর সড়কে নেমে ধর্ষিত হন ওই ঢাবি ছাত্রী। মুখ চেপে ধরে তাকে তুলে সড়কের পাশে নিয়ে ধর্ষণ করা হয়। ওই দিন গভীর রাতে তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে (ওসিসি) ভর্তি করা হয় তাকে।
 
ওই শিক্ষার্থীর বর্ণনা থেকে পুলিশ ধারণা পেয়েছে, ধর্ষণকারী একজনই, তার বয়স ২৫-৩০ বছরের মতো। এদিকে ধর্ষণের খবর শোনার পর ওই রাত থেকেই বিক্ষোভ করছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা।

নারী ও শিশু এর আরো খবর