৪৮ বছর পর সিরিজ প্রোটিয়াদের

দক্ষিণ আফ্রিকার মাঠে তাদেরকে সামলানো দুষ্কর। কিন্তু সেটা এতোদিন অজিদের জন্য ছিল ভিন্ন ব্যাপার। ১৯৭০ সালের পরে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ঘরের মাঠে টেস্ট সিরিজ জিততে পারেনি দক্ষিণ আফ্রিকা। কিন্তু এবার হলো। চার ম্যাচের টেস্ট সিরিজে অস্ট্রেলিয়াকে ৩-১ ব্যবধানে হারিয়ে মরনে মরকেলের বিদায়ি টেস্টা স্মরণ করে রাখল প্রোটিয়ারা।  সিরিজের শেষ টেস্টে টিম পেইনের দলকে সাধারণ লড়াইটাও করতে দিলো না প্রোটিয়া বোলাররা। আলাদা করে বললে ভারনন ফিল্যান্ডার। জয়ের জন্য দক্ষিণ আফ্রিকার দরকার ছিল অস্ট্রেলিয়ার ৭ উইকেট। ফিল্যান্ডার একাই পকেটে ঢুকিয়েছেন ৬ উইকেট। অস্ট্রেলিয়াও মেনে নিল ৪৯২ রানের বড় পরাজয়।  ৪৯২ রানের জয়টা দক্ষিণ আফ্রিকার টেস্ট ইতিহাসে রানের ব্যবধানে বড় জয়। বিগত ৮২ বছরে এতো বড় জয় পায়টি প্রোটিয়ারা। ১৯৩৪ সালের পর তাদের সবচেয়ে বড় ব্যবধানের জয়। অস্ট্রেলিয়া ৩ উইকেটে ৮৮ রান নিয়ে দিন শুরু করেছিল। শেষ দিনের শুরুতে কোনো রান যোগ না করেই সাজঘরে ফেরেন শন মার্শ ও মিচেল মার্শ ভ্রাতা। এরপর ৯৯ রানের মধ্যে ফিরে যান হ্যান্ডসকম্ব ও অধিনায়ক টিম পেইন। শেষমেষ অস্ট্রেলিয়ার সংগ্রহটা ১১৯ রান পর্যন্ত যায়।  দক্ষিণ আফ্রিকা-অস্ট্রেলিয়া টেস্ট সিরিজের শুরুটা কথার লড়াই দিয়ে হয়েছে। তা নিয়ে প্রোটিয়া দলের অন্যতম সেরা পেসার রাবাদা দল থেকে নিষিদ্ধ হন। দক্ষিণ আফ্রিকার সঙ্গে মাঠের লড়াইয়ে পেরে না উঠে অস্ট্রেলিয়ার বল টেম্পারিং কান্ড। এরপর নিষিদ্ধ অস্ট্রেলিয়ার স্মিথ, ওয়ার্নার এবং ব্যানক্রফট। অজিদের সিরেজের শেষটা হলো ৪৯২ রানের বড় পরাজয়ে। অস্ট্রেলিয়ার জন্য এই ধাক্কা সামলে উঠতে নিশ্চয় বেশ সময় লাগবে।