৪৩৪ রান টপকানো মহাকাব্যিক সেই ইনিংস
খবরের অন্তরালে প্রতিবেদক :

ওয়ানডে ইতিহাসে ৪৩৪ রান তো দূরে থাক ৪০০ রানের কোন ইনিংসও কেউ টপকাতে পারেনি। সেখানে ৪৩৪ রান টপকে ক্রিকেট ইতিহাসে নিজেদের নতুন করে চেনালেন প্রোটিয়ারা।

সময়টা ২০০৯ সালের ১২ মার্চ। তথা আজকের দিনেই ওই মহাকব্যিক ইনিংস খেলে। দক্ষিণ আফ্রিকার জোহানসবার্গে তখন ২-২ সমতা অসি-প্রোটিয়াদের। শেষ ম্যাচে অস্ট্রেলিয়া দলের অধিনায়ক রিকি পন্টিংয়ের দেড়শো পেরোনো ইনিংসে ভর করে ৪৩৪ রানের এভারেস্টসম রান দাঁড় করায় অস্ট্রেলিয়া। এতে প্রোটিয়াদের ৪৩৫ রানের টার্গেট ছুঁড়ে দেয় পন্টিং বাহিনী। পন্টিংয়ের ১০৫ বলে ১৬৪ রান, গিলক্রিস্টের ৪৪ বলে ৫৫ রান ও মাইক হাসির ৫১ বলে ৮১ রানের উপর ভর করে অস্ট্রেলিয়া প্রথমবারের মত ৪০০ রানের মাইলফলক ছুঁয়ে যায়।

খেলাতো ওখানেই শেষ হয়ে যাওয়ার কথা। কিন্তু স্টেডিয়ামটা যে জোহানসবার্গের। দর্শকরা যে ওই দিন গিয়েছিলই আনন্দ-উপভোগ করতে। স্ময়ং ক্রিকেট ঈশ্বর এদের খালি হাতে ফেরান কি করে? না খালি হাতে ফেরান নি। এভারেস্ট জয়ের লক্ষ্যটা তাই একাই তুলে নিয়েছিলেন হার্সেল গিবস। ওইদিন হয়তো ছয় বলে ছয় ছক্কা হাঁকাননি সত্য। কিন্তু একের পর এক বল নিয়ে ফেলেছেন বাউন্ডারির ওপাড়। ১১১ বলে ১৭৫ রানের দানবীয় ইনিংসে ভর করে এক বল হাতে থাকতেই জয়ের বন্দরে পৌঁছে যায় প্রোটিয়ারা।

সেদনি গিবস ছাড়াও গ্রায়েম স্মিথের ৫৫ বলে ৯০ রান ও শেষ দিকে জোহান ভেনডারওয়ালথের ১৮ বলে ৩৫ রানও জয়ের ভিত গড়ে দেয় প্রোটিয়াদের। ওইদিন গোটা ক্রিকেট বিশ্ব মোট ৮৭টি চার ও ২৬টি ছক্কা উপভোগ করেছে। ১০ ওভারে ১১৩ রান দিয়ে কোন উইকেট না পাওয়ায়এখন পর্যন্ত অস্ট্রেলিয়া দলের বোলার মিক লুইস সবচেয়ে খরুচে বোলারের তালিকায় রয়েছেন।

সর্বশেষ সংবাদ