প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা মোতাবেক কাজ করা হয়েছে

ঢাকা-দুবাইগামী বাংলাদেশ বিমান ছিনতাই চেষ্টার ঘটনা নিয়ে দেশব্যাপী নানা উৎকণ্ঠা তৈরি হয়। এ সময় ঘটনার পর প্রধানমন্ত্রীর সরাসরি নির্দেশনায় কাজ করেছে নিরাপত্তা বাহিনী। সিভিল অ্যাভিয়েশনের চেয়ারম্যান এয়ার ভাইস মার্শাল নাঈম হাসান এ তথ্য নিশ্চিত করেন। রোববার রাতে এক ব্রিফিংয়ে সাংবাদিকদের বলেন, আমরা প্রধানমন্ত্রীর অফিসে ঘটনাটা জানিয়েছি। সেখানে প্রধানমন্ত্রী নিজেই প্রয়োজনীয় নির্দেশনা দিয়েছেন। সেই মোতাবেক কাজ করা হয়েছে। ওনার নির্দেশ মোতাবেক বাংলাদেশ সেনাবাহিনী, র‌্যাব, নেভির সোয়াত টিম, আমাদের কমান্ডো সবাই বিমানবন্দরে অবস্থান নেন। সিনিয়র এয়ার কমান্ডার মফিদের নেতৃত্বে ‘কম্বিং অপারেশন’ করা হয়। ৭.১৭ অপারেশন শুরু হয় ৭.২৫ অপারেশন সফল হয়। পাইলট ও হাইজাকারকে পায়ে ইনজুরড অবস্থায় বের করে আনা সম্ভব হয়। তিনি বলেন, এখানে কোনো পাইলট, কেবিন ক্রু এমনকি কোনো যাত্রী আহত বা নিহত হওয়ার ঘটনা নেই। সবাই নিরাপদে আসতে পেরেছে। আমরা এয়ারপোর্ট ৮টার সময় খুলে দিয়েছি। এখন আবার বিমান চলাচল স্বাভাবিকভাবেই হচ্ছে। এই ঘটনার তদন্তে একটা কমিটি হবে। ইতিমধ্যে কথা হয়েছে। কেন কী কারণে এমন ঘটনা ঘটল আমরা খতিয়ে দেখব। ছিনতাইকারীর কাছে একটি অস্ত্র ছিল, তার গায়ে বোম ফিট করা ছিল কিনা তদন্ত করলে বের হয়ে আসবে।
 

বিশেষ প্রতিবেদন এর আরো খবর