ষোড়শ সংশোধনী নিয়ে ব্যারিস্টার নাজমুল হুদা
‘অবিলম্বে কাঁদা ছোড়াছুড়ি বন্ধ করা উচিত’
খবরের অন্তরালে প্রতিবেদক :

বাংলাদেশ জাতীয় জোট- বিএনএ ও তৃণমূল বিএনপি’র চেয়ারম্যান সাবেক মন্ত্রী ও বিশিষ্ট আইনজীবী ব্যারিস্টার নাজমুল হুদা ষোড়শ সংশোধনীকে কেন্দ্র করে চলমান বিতর্ক অবসানে এক বিবৃতিতে বলেন, যেভাবে ষোড়শ সংশোধনীকে কেন্দ্র করে জাতীয় পর্যায়ে কাদা ছোড়াছুড়ি চলছে, এটা অবিলম্বে বন্ধ করা উচিত। তা না হলে জাতীর জন্য তা অত্যন্ত দুঃখের কারণ হয়ে দাঁড়াবে।
এই বিতর্ক সরকারের তিনটি প্রধান অঙ্গ তথা নির্বাহী, সংসদ ও বিচার বিভাগের মধ্যে এখতিয়ার নিয়ে যে বিতর্ক চলছে, সেটা দেশের আইনের শাসন ও গণতন্ত্রকে বিপন্ন করতে পারে, যা আমাদের কাছে কাঙ্ক্ষিত নয়।
এই সমস্যা সমাধান হতে পারে যদি সুপ্রীম জুডিশিয়াল কাউন্সিল এবং বিচারপতি অপসারণে সংসদের ক্ষমতা অক্ষুন্ন রাখা যায়। সে ক্ষেত্রে বিচারপতিদের অসদাচারণের তদন্ত সাংবিধানিকভাবেই সুপ্রিম জুডিশিয়াল কাউন্সিলের উপর ন্যাস্ত থাকবে, তবে সংশোধনী এনে এই সুপ্রিম জুডিশিয়াল কাউন্সিলের সুপারিশ সংসদে উপস্থাপনের বিধান সংবিধানে সংযোজিত করতে হবে। সুপ্রীম জুডিশিয়াল কাউন্সিলের এই সুপারিশ সংসদে দুই-তৃতীয়াংশ সংখ্যাগরিষ্ঠতায় অনুমোদিত হওয়ার পরই রাষ্টপতি একজন বিচারপতিকে অপসারণ করতে পারবেন।
তবে বিচারপতি অপসারণ সংক্রান্ত সুপ্রীম জুডিশিয়াল কাউন্সিলএর সুপারিশের ভোট গ্রহণের ক্ষেত্রে সংবিধানের ৭০ অনুচ্ছেদের প্রয়োগ রহিত করতে হবে। অর্থাৎ অভিশংসনের ভোটাভুটিতে সংসদ সদস্যগণ সম্পূর্ণ দলীয় প্রভাবের বাহিরে থেকে নিজস্ব বিবেক-বিবেচনায় ভোট প্রদান করে বিচারপতি অপসারণের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করবেন।
ব্যারিস্টার নাজমুল হুদা আরও বলেন, সংবিধানের সংশ্লিষ্ট বিধি-বিধান অবিলম্বে সংশোধন ও সংযোজন করার জন্য একটি বিশেষ অধিবেশন ডেকে উপরোক্ত প্রস্তাবের আলোকে সংবিধান সংশোধন করলেই ষোড়শ সংশোধনী নিয়ে এই অনাকাক্সিখত বিতর্কের অবসান করা সম্ভব হবে।

নির্বাচিত সংবাদ এর আরো খবর