শোলাকিয়ায় সবচেয়ে বড় ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত
খবরের অন্তরালে প্রতিবেদক :

দেশে সবচেয়ে বড় ঈদুল আযহার জামাত অনুষ্ঠিত হয়েছে কিশোরগঞ্জের ঐতিহাসিক শোলাকিয়া ঈদগাহ ময়দানে।  এ বছর নিরাত্তার চাদরে ডাকা ঐতিহিাসক শোলাকিয়ায় ১৯০তম ঈদুল আযহার জামাতে ইমামতি করেন বিশিষ্ট ইসলামি চিন্তাবিদ মারকাস মসজিদের ইমাম মুফতি হিফজুর রহমান।   নিরাপত্তার কারণে শোলাকিযায় যাওয়ার অধিকাংশ সড়ক বন্ধ করে দেওয়ায় মুসুল্লিরা প্রায় তিন কিলোমিটার হেঁটে সকাল থেকে শোলাকিয়ায় আসেন। আবহাওয়া অনুকূল থাকায় হাজার হাজার মুসুল্লির সমাগম হয়। নামাজ শুরুর ৫ মিনিট ও ১ মিনিট আগে শর্টগানের তিনটি ফাঁকা গুলি ছোঁড়া হয়। নামাজ শুরু হয় সকাল ৯টায়।  মাঠ পরিচালনা কমিটির সভাপতি ও জেলা প্রশাসক মো. আজমুদ্দিন বিশ্বাস, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট জিল্লুর রহমান, জেলা পুলিশ সুপার মো. আনোয়ার হোসেন খান, পৌর মেয়র মাহমুদ পারভেজ, প্র্রশাসন, পুলিশ, বিচার বিভাগের উধ্বর্তন কর্মকর্তা,রাজনীতিবিদ,জনপ্রতিনিধি, শহরের গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গসহ হাজার হাজার মুসুল্লি শোলাকিয়া নামাজ আদায় করেন।  এবার জেলা প্রশাসন, পৌরসভা শোলাকিয়া ঈদগাহ মাঠ ও কিশোরগঞ্জ শহর সাজিয়ে এক ব্যতিক্রমধর্মী ঈদ আমেজের সৃষ্টি করেছে। শহরের গুরুত্বপূর্ণ স্থানে তোরণ নির্মাণ, বিশুদ্ধ খাবার পানি সরবরাহ ও শহরের বৈদ্যুতিক খুঁটি এবং সারা শহরজুড়ে  বিভিন্ন হাদিস সম্বলিত ব্যানার ফেস্টুন টানিয়ে মুসলি¬দের শোলাকিয়া ঈদগাহে আমন্ত্রণ জানানোর উদ্যোগটি মুসলি¬দের মাঝে বাড়তি অনুপ্রেরণার যোগান দেয়। কিশোরগঞ্জ চেম্বার অব কমার্স আগত মুসুল্লিদের খাওয়ার ব্যবস্থা করেন। শোলাকিয়া ময়দানে র‌্যাব, পুলিশ,  আর্মড পুলিশ, ডিবি ও সাদা পোষাকে আইনশৃংখলা বাহিনীর লোকজন বিশেষ নিরাপত্তা বলয় সৃষ্ঠি করায় মুসুল্লিরা শান্তিপূর্ণ ও নিরাপদ পরিবেশে নামাজ আদায় করেন।  নামাজ শেষে মুসলিম উম্মার শান্তি, দেশের সমৃদ্ধি ও যারা দেশের স্বাধীনতার জন্য কাজ করেছেন সেইসব ব্যক্তি ও শহীদ মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য মাগফেরাত কামনা জঙ্গি ও সন্ত্রাসবাদ প্রতিরোধে মহান আল্লার সাহায্য কামানা করে বিশেষ মোনাজাত করা হয়। তাছাড়া মিয়ানমারে মুসলিমসহ সারা বিশ্বের নির্যাতিত মানুষকে হেফাজত করাসহ দেশের উন্নয়নের জন্য সত্যিকার এবং সৎভাবে রাজনীতি করে তাদের হাতকে শক্তিশালী করার জন্য আল্লাহ কাছে দোয়া চাওয়া হয়। মাঠ কমিটির সভাপতি ও জেলা প্রশাসক মো. আজিমুদ্দিন বিশ্বাস জানান, এ কোরবানির মধ্যেও হাজার হাজার মুসুল্লি জামাতে নামাজ আদায় করেন। তার সাথে একমত প্রকাশ করেন মাঠ পরিচালনা কিমিটির সচিব উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আবদুল্লাহ আল মাসুদ।  জেলা পুলিশ সুপার মো. আনোয়ার হোসেন খান জানান, শোলাকিয়া ময়দানসহ আশপাশ এলাকা সম্পূর্ণভাবে আইন-শৃংখলা বাহিনীর নিরাপত্তা বলয়ে ঢাকা ছিল। শান্তিপূর্নভাবে জামাত অনুষ্ঠিত হওয়ায় তিনি সবার কাছে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন। 

সর্বশেষ সংবাদ