সরকার গণতন্ত্র চর্চার পথ বন্ধ করে দিচ্ছে : ফখরুল
খবরের অন্তরালে প্রতিবেদক :

বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, আমরা ফেব্রুয়ারি মাসে জনসভার অনুমতি চেয়েছিলাম, তারা বইমেলার দোহাই দিয়ে বললো মার্চ মাসে করতে পারবেন। এখন মার্চ মাসে করতে গিয়ে গতকাল ডিএমপি কমিশনার বলেছেন, নিরাপত্তাজনিত কারণে জনসভার অনুমতি দেওয়া হয়নি। এভাবে সরকার গণতন্ত্র চর্চার পথ বন্ধ করে দিচ্ছে। সোমবার সকালে রাজধানীর নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আয়োজিত সাংবাদিক সম্মেলনে এ অভিযোগ করেন মির্জা ফখরুল। ফখরুল বলেন, দেশের রাজনীতি এখন গোয়েন্দাদের হাতে চলে গেছে। দুঃখ হয় যখন গোয়েন্দাদের ওপর ভিত্তি করে রাজনৈতিক দলের সভা-সমাবেশ হবে কিনা তা নির্ধারণ করা হয়। বিএনপি এখন সংঘাত এড়িয়ে নিয়মতান্ত্রিক ও গণতান্ত্রিক পথে আন্দোলন করছে। অনেকেই এটিকে বিএনপির দুর্বলতা ভাবছে। কিন্তু তা নয়, বিএনপি দেশকে ভালোবাসে বলেই শান্তিপূর্ণ কর্মসূচি পালন করছে। তিনি বলেন, সমাবেশের জন্য সাধারণত অনুমতি নিতে হতো না, শুধু অবহিত করলেই হতো। কিন্তু এই স্বৈরাচারী সরকার বিগত কয়েক বছরে সমাবেশের স্থানগুলো প্রথমে সংকুচিত করে বর্তমানে পুরোপুরি বন্ধ করে দিয়েছে। তিনি অভিযোগ করে বলেন, কখনও কখনও আমাদেরকে জনসভার অনুমতি দিলেও সেটিকে একেবারে ছোট্ট পরিসরে সম্পন্ন করার জন্য নির্দেশ দেওয়া হয়। জনসভার আশেপাশে ১৪৪ ধারা জারি করে জনমনে ভয়ের সঞ্চার করা হয়, যাতে বিএনপির জনসভায় লোকসমাগম কম হয়। সংবাদ সম্মেলনে আরো উপস্থিত ছিলেন বিএনপির জাতীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. আব্দুল মঈন খান, নজরুল ইসলাম খান, সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুস সালাম আজাদ, যুগ্ম মহাসচিব খায়রুল কবির খোকন, সহ-দপ্তর সম্পাদক তাইফুল ইসলাম টিপু প্রমুখ।

রাজনীতি এর আরো খবর