একনেকে ২১০৮ কোটি টাকার নয় প্রকল্প অনুমোদন

দুই হাজার ৪২২ কোটি ২৭ লাখ টাকার নয়টি উন্নয়ন প্রকল্প অনুমোদন দিয়েছে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটি (একনেক)। এরমধ্যে সরকার নিজস্ব তহবিল থেকে দুই হাজার ১০৮ কোটি ৪৫ লাখ টাকা এবং সংস্থার নিজস্ব অর্থায়নে ৩১৩ কোটি ৮২ লাখ টাকা।
 
মঙ্গলবার শেরেবাংলা নগরের এনইসি সম্মেলনকক্ষে একনেক সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন প্রধানমন্ত্রী ও একনেকের চেয়ারপারসন শেখ হাসিনা। সভা শেষে সাংবাদিকদের ব্রিফ করেন পরিকল্পনা সচিব নুরুল আমিন।
 
পরিকল্পনা সচিব জানান, গ্রাম পর্যায়ে টেলিটকের নেটওয়ার্ক সম্প্রসারণ এবং ফাইভ-জি সেবাপ্রদানে নেটওয়ার্ক আধুনিকায়ন প্রকল্পটি উপস্থাপন করা হলে সম্ভাব্যতা যাচাইয়ের জন্য সেটি আবার ফেরত দেয়া হয়েছে। এক্ষেত্রে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নির্দেশনা দিয়ে বলেছেন, টেলিটকের দায়িত্ব বাড়াতে হবে। প্রকল্পটি তৃতীয় পক্ষের মাধ্যমে সম্ভাব্যতা যাচাই করে তারপর একনেকে উপস্থাপন করতে হবে।
 
একনেক সভায় পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের ‘হবিগঞ্জ জেলার বিবিয়ানা বিদ্যুৎ কেন্দ্রসমূহের সম্মুখে কুশিয়ারা নদীর উভয় তীরের প্রতিরক্ষা’ নামের একটি প্রকল্পও অনুমোদন দেয়া হয়েছে।
 
এ প্রকল্পের বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা তুলে ধরে নূরুল আমিন বলেন, হবিগঞ্জের কুশিয়ারা নদীর ড্রেজিং ভালোভাবে করার জন্য বলেছেন প্রধানমন্ত্রী।
 
অনুমোদিত প্রকল্পগুলো হচ্ছে, মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ৫০ শয্যা ও জেলা সদর হাসপাতালে ১০ শয্যার কিডনি ডায়ালাইসিস স্টোর স্থাপন প্রকল্পের খরচ ধরা হয়েছে ২৫৫ কোটি ২২ লাখ টাকা। বানেশ্বর-সারদা-চারঘাট-বাঘা-লালপুর-ঈশ্বরদী জেলা মহাসড়ককে আঞ্চলিক মহাসড়কমানে উন্নীতকরণ প্রকল্পের খরচ ধরা হয়েছে ৫৫৪ কোটি ৩০ লাখ টাকা। সৈয়দপুর-নীলফামারী মহাসড়ক প্রশস্তকরণ ও মজবুতিকরণ প্রকল্পের খরচ ধরা হয়েছে ২১৭ কোটি টাকা। হবিগঞ্জ জেলার বিবিয়ানা বিদ্যুৎ কেন্দ্রসমূহের সামনে কুশিয়ারা নদীর উভয় তীরের প্রতিরক্ষা প্রকল্পের খরচ ধরা হয়েছে ৫৭৩ কোটি ৪৮ লাখ টাকা। তেজগাঁওএ বিসিকের বহুতল ভবন নির্মাণ প্রকল্পের খরচ ধরা হয়েছে ৩০ কোটি ৩৫ লাখ টাকা।
 
বিসিক প্লাস্টিক শিল্পনগরী প্রকল্পের খরচ ধরা হয়েছে ২৬৪ কোটি ৪৫ লাখ টাকা। বিসিকের আটটি শিল্পনগরী মেরামত ও পুনঃনির্মাণ প্রকল্পের খরচ ধরা হয়েছে ৭৪ কোটি ২৫ লাখ টাকা। ইন্ডিয়া-বাংলাদেশ ফেন্ডশিপ পাইপলাইন প্রকল্পের প্রয়োজনীয় জমি অধিগ্রহণ ও হুকুম দখল এবং অন্যান্য আনুষঙ্গিক সুবিধাদি উন্নয়ন প্রকল্পের খরচ ধরা হয়েছে ৩০৬ কোটি ২৩ লাখ টাকা। খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিকতর অবকাঠামো উন্নয়ন প্রকল্পের খরচ ধরা হয়েছে ১৪৬ কোটি ৯১ লাখ টাকা
 
জানাগেছে বিসিকের আটটি শিল্পনগরি মেরামত ও পুনঃনির্মাণ প্রকল্প বাস্তবায়নের সময় ধরা হয়েছে ২০২১ সাল। এটি বাস্তবায়িত হলে পুরাতন ও জরাজীর্ণ আটটি বিসিক শিল্পনগরীর শিল্পসহায়ক অবকাঠামো মেরামত ও পুনঃনির্মাণ করা হবে। এতে এসব শিল্পনগরীতে অবস্থিত শিল্পগুলোর প্রয়োজনীয় কাঁচামাল ও উৎপাদিত পণ্য পরিবহন সহজতর হবে। ফলে শিল্পসমূহের জন্য সর্বোচ্চ সেবা নিশ্চিত করা সম্ভব হবে এবং বিদ্যমান শিল্পসমূহের প্রসার ঘটবে ও নতুন শিল্প স্থাপনে উদ্যোক্তারা আগ্রহী হবে। এতে শিল্পনগরীসমূহের উৎপাদন ক্ষমতা বৃদ্ধি পাবে এবং টেকসই অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি অর্জন করা সম্ভব হবে।
 
প্রকল্প এলাকা ময়মনসিংহ, জামালপুর, নরসিংদী, কুমিল্লা, কক্সবাজার, সিলেট, বগুড়া, সাতক্ষীরা।

জাতীয় এর আরো খবর