উপজেলা নির্বাচনের পঞ্চম ধাপের ভোট ১৮ জুন

পঞ্চম ধাপে ১৬টি উপজেলায় ভোট অনুষ্ঠিত হবে আগামী ১৮ জুন। বৃহস্পতিবার নির্বাচন কমিশন (ইসি) প্রজ্ঞাপন জারির মাধ্যমে উপজেলা নির্বাচনের এই ধাপের ভোটের তফসিল ঘোষণা করে। ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী, নির্বাচনে চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান ও নারীদের জন্য সংরক্ষিত ভাইস চেয়ারম্যান পদে মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার শেষ দিন ২১ মে। মনোনয়নপত্র বাছাই ২৩ মে ও প্রত্যাহারের শেষ দিন ৩০ মে। এসব উপজেলা হলো— শেরপুরের নকলা, নাটোরের নলডাঙ্গা, সিরাজগঞ্জের কামারখন্দ, গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ, পটুয়াখালীর রাঙ্গাবালী, বরগুনার তালতলী, গাজীপুর সদর, নারায়ণগঞ্জের বন্দর, মাদারীপুর সদর, রাজবাড়ীর কালুখালী, হবিগঞ্জের শায়েস্তাগঞ্জ, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বাঞ্ছারামপুর ও বিজয়নগর, কুমিল্লার আদর্শ সদর ও সদর দক্ষিণ এবং নোয়াখালী সদর। ইসি সচিবালয় সূত্র জানায়, এর আগে চার ধাপে উপজেলা চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান ও নারী ভাইস চেয়ারম্যান নির্বাচনের ৪৫৮টি উপজেলায় নির্বাচন হয়েছে। এর মধ্যে ৩০টি উপজেলায় ভোটগ্রহণের প্রয়োজন হয়নি। এসব উপজেলার সব পদের প্রার্থীরাই বিনা ভোটে বিজয়ী হন। এর বাইরে চেয়ারম্যান পদে আরও ৭৭ জন প্রার্থী বিনা ভোটে জয়ী হয়েছেন। সব মিলিয়ে এখন পর্যন্ত ১০৭ জন উপজেলা চেয়ারম্যান বিনা ভোটে জয়ী হয়েছেন। নির্বাচনের চতুর্থ ধাপ শেষে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের ৩১৮ জন প্রার্থী জয়ী হন। এছাড়া স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে জয়ী ১৩৬ জনের বেশির ভাগই আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী।  এর বাইরে জাতীয় পার্টি তিনটি ও জাতীয় পার্টি-জেপির প্রার্থী একটি উপজেলায় জয়ী হয়েছে। দলীয় নিবন্ধন না থাকায় দ্বিতীয় ধাপের নির্বাচনে রাঙামাটিতে জনসংহতি সমিতি (জেএসএস) ও জনসংহতি সমিতির (জেএসএস-এমএন লারমা) প্রার্থীরা স্বতন্ত্র হিসেবে নির্বাচন করেন। এই জেলার জুরাছড়ি, বরকল ও বিলাইছড়ি উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে জেএসএস-এর প্রার্থীরা জয় পেয়েছেন। নানিয়ারচর ও বাঘাইছড়িতে চেয়ারম্যান পদে জয় পেয়েছেন জেএসএস-এমএন লারমার প্রার্থীরা। উল্লেখ্য, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ভোটগ্রহণ সুষ্ঠু হয়নি দাবি করে বিএনপির নেতৃত্বাধীন জোট জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট উপজেলা নির্বাচন বর্জন করেছে।

সর্বশেষ সংবাদ

জাতীয় এর আরো খবর