টাঙ্গাইল ও ময়মনসিংহে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত ২

টাঙ্গাইলে র‌্যাবের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ এক চরমপন্থী নেতা ও ময়মনসিংহে পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে এক মাদক ব্যবসায়ী নিহত হয়েছেন। রোববার গভীর রাতে এসব ঘটনা ঘটে।  টাঙ্গাইল প্রতিনিধি: টাঙ্গাইলে র‌্যাবের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ শরিফ হোসেন ফরহাদ (৩৩) নামের এক চরমপন্থী নেতা নিহত হয়েছেন। রোববার রাত ৩টার দিকে সদর উপজেলার দাইন্যা চৌধুরীপাড়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। র‌্যাবের দাবি, শরিফ হোসেন ফরহাদ টাঙ্গাইল অঞ্চলের পূর্ব বাংলা কমিউনিস্ট পার্টির (লাল পতাকা) জেলা সভাপতি। তার বিরুদ্ধে ডাকাতিসহ পাঁচটি মামলা রয়েছে। টাঙ্গাইল র‌্যাব-১২ এর কমান্ডার মেজর রবিউল ইসলাম বলেন, গোপন সূত্রে খবর পেয়ে গভীর রাতে দাইন্যা চৌধুরীপাড়া এলাকায় র‌্যাবের সদস্যরা অভিযানে যায়। এসময় র‌্যাবের উপস্থিতি টের পেয়ে চরমপন্থী দলের সদস্যরা গুলি ছোড়ে। র‌্যাবও আত্মরক্ষার্থে পাল্টা গুলি ছোড়ে। গোলাগুলি শেষে শরিফ হোসেনকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখা যায়। তাকে উদ্ধার করে টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। এ ঘটনায় র‌্যাবের দুই সদস্য আহত হয়েছেন।  ময়মনসিংহ ব্যুরো: ময়মনসিংহ শহরের আকুয়া দরগাপাড়া এলাকায় ডিবি পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ মো. পায়েল (২৯) নামের এক মাদক ব্যবসায়ী নিহত হয়েছেন। রোববার রাত সোয়া ১টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। এসময় এক পুলিশ সদস্য আহত হন।  নিহত পায়েল শহরের পুরোহিতপাড়া এলাকার জালাল উদ্দিনের পুত্র। তার বিরুদ্ধে কোতোয়ালী মডেল থানায় মাদক, চাঁদাবাজি ও বিস্ফোরক দ্রব্য আইনে ১১টি মাদক মামলা রয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ। জেলা গোয়েন্দা পুলিশের ওসি শাহ কামাল আকন্দ জানান, রোববার রাত সোয়া ১টার দিকে গোয়েন্দা পুলিশের দু’টি টিম মাদকবিরোধী অভিযান চালায়। পুলিশের একটি দল শহরের আকুয়া দরগাপাড়া খালপাড় এলাকায় অভিযান পরিচালনার সময় ৬-৭ জন মাদক ব্যবসায়ী পুলিশের ওপর অতর্কিতে হামলা করে ও গুলি ছোড়ে। আত্মরক্ষার্থে পুলিশ কয়েক রাউন্ড পাল্টা গুলি ছুড়লে মাদক ব্যবসায়ীরা পালিয়ে যায়। পরে ঘটনাস্থল থেকে পায়েলকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় উদ্ধার করা হয়। তাকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। পুলিশ ওই মাদক ব্যবসায়ীর শরীর তল্লাশী করে ১০০ পিস ইয়াবা এবং ১০০ গ্রাম হেরোইন উদ্ধার করে।

খুন ও সন্ত্রাস এর আরো খবর