প্রসবপরবর্তী মায়েদের মনোরোগ

গর্ভধারণ ও সন্তান প্রসব একজন মায়ের যেমন সবচেয়ে আবেগপ্রবণ ও আনন্দপূর্ণ মুহূর্ত, তেমনি এ সময় তৈরি হতে পারে নানা রকম শারীরিক সমস্যা। হতে পারে মনোরোগ ও মানসিক সমস্যাও। এ মনোরোগ কোনো কোনো ক্ষেত্রে মায়ের মৃত্যুর কারণ হতে পারে। প্রসব পরবর্তী বিষণ্নতা এসবের মধ্যে অন্যতম। মনখারাপের মতো অযৌক্তিক, নেতিবাচক, আবেগ যদি তীব্র আকারে দীর্ঘ সময় ধরে কোনো ব্যক্তিকে ঘিরে রেখে তার ব্যক্তিগত, পারিবারিক ও সামাজিক জীবনের প্রতিটি ক্ষেত্রে অথবা যে কোনো দুটি ক্ষেত্রে বিচ্যুতি বা বিকার ঘটায়, চিকিৎসাবিজ্ঞানের ভাষায় তা-ই বিষণ্নতা। প্রসব পরবর্তী মায়ের মধ্যে সাধারণত তিন ধরনের বিষণ্নতা পরিলক্ষিত হয়। যেমন- নীল মাতৃত্ব বা ম্যাটারনিটি ব্লু : প্রসবপরবর্তী ৩-৫ দিনের মধ্যে, বিশেষ করে যারা প্রথমবার মা হয়েছেন, তাদের মধ্যে যে লক্ষণগুলো স্পষ্ট হয়ে ওঠে তা হলো-অস্থিরতা ও অসহিষ্ণুতা। কান্না কান্না ভাব বা কখনো হাউমাউ করে কান্নাকাটি করা। এই ভালো এই মন্দ অথবা এই স্বাভাবিক আচরণ আবার একটু পরেই উত্তেজিত আচরণ। মনোযোগের ঘাটতি, কথা ভুলে যাওয়ার প্রবণতা অথবা সিদ্ধান্তহীনতায় ভোগা। এই নীলমাতৃত্ব বা ম্যাটারনিটি ব্লুয়ের লক্ষণগুলো দুসপ্তাহের মধ্যে নিজ থেকেই ভালো হয়ে যায়। প্রসবপরবর্তী বিষণ্নতা : প্রাথমিকভাবে এটি নীল মাতৃত্ব বা ম্যাটারনিটি ব্লুয়ের মতো মনে হলেও এ রোগের উপসর্গের মাত্রাগুলো তীব্র হয় এবং স্থায়িত্ব দুসপ্তাহ বা দুসপ্তাহের বেশি হয়। সঠিক সময়ে এ রোগটির চিকিৎসা না করালে ভয়াবহ আকার, অর্থাৎ রোগী আত্মহত্যা করতে পারেন। প্রসব-পরবর্তী বিষণ্নতা বা পোস্ট পার্টাম ডিপ্রেশনের উপসর্গগুলো হলো-দিনের বেশি সময় মন খারাপ থাকা। কোনো কাজে আনন্দ খুঁজে না পাওয়া, বিশেষ করে আনন্দের কাজে আনন্দ খুঁজে না পাওয়া। তাৎপর্যপূর্ণভাবে ওজন কমে যাওয়া বা বেড়ে যাওয়া। ঘুম কমে যাওয়া বা বেশি ঘুমানো। উৎকণ্ঠা বা কোনো কাজে গতি হ্রাস। শক্তিক্ষয়। নিরর্থক অনুভূতি বা অত্যধিক কিংবা অনুপযুক্ত অপরাধ বোধ। চিন্তা অথবা মনোনিবেশ করার ক্ষমতা হ্রাস বা সিদ্ধান্তহীনতায় ভোগা। বারবার মৃত্যুচিন্তা মনে আসা, বারবার নির্দিষ্ট পরিকল্পনা ছাড়া আত্মহত্যামূলক অভিপ্রায় অথবা আত্মহত্যার চেষ্টা কিংবা আত্মহত্যা করার জন্য নির্দিষ্ট পরিকল্পনা করা। উল্লিখিত লক্ষণের মধ্যে পাঁচ বা এর বেশি একটানা ১৫ দিন অথবা তার বেশিদিন বিদ্যমান থাকলে তা প্রসব-পরবর্তী বিষণ্নতা বলা হয়। মনোরোগের সঙ্গে বিষণ্নতা : প্রসব-পরবর্তী বিষণ্নতার সঙ্গে যদি ভ্রান্ত ধারণা, অমূলক প্রত্যক্ষ অর্থাৎ কানে গায়েবি আওয়াজ শোনা অথবা চোখে দেখা ইত্যাদি এবং শিশুহত্যার মতো প্রবণতা পরিলক্ষিত হয়, তখন তাকে বলা হয় মনোরোগের সঙ্গে বিষণ্নতা এমন লক্ষণ পরিলক্ষিত হলে দ্রুত মনোরোগ বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিতে হবে। লেখক : মনোরোগ বিশেষজ্ঞ ও চিকিৎসা ভাষাবিদ  সহকারী অধ্যাপক; মনোরোগবিদ্যা বিভাগ, জেডএইচ সিকদার ওমেন্স মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতাল, ধানমন্ডি, ঢাকা