ভারত-অস্ট্রেলিয়ায় বাড়িসহ প্রদীপের অবৈধ সম্পদের পাহাড়

সাবেক মেজর সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ খান হত্যা মামলায় গ্রেপ্তারকৃত টেকনাফের সাবেক ওসি প্রদীপ কুমার দাস ও তার স্ত্রী চুমকি দাসের নামে প্রচুর সম্পদের তথ্য পেয়ে দুদক। এর মধ্যে দেশ-বিদেশে একাধিক বাড়ি, ফ্ল্যাট ও ব্যবসা রয়েছে। যার তথ্য গোপন করেছিলের প্রদীপ।
 
কিন্তু এর আগে দুর্নীতি দমন কমিশনের কাছে ৩ কোটি ৫৯ লাখ টাকার বৈধ সম্পদের তথ্য দিয়েছিল সাবেক ওসি প্রদীপ।
 
চট্টগ্রাম নগরীর পাথরঘাটা আরসি চার্চ রোডের ছয়তলা বাড়ি লক্ষীকুঞ্জের মালিক চুমকি দাস। চার শতক জমির ওপর নির্মিত এই বাড়ির বাজার মূল্য ১ কোটি ৩০ লাখ টাকার বেশি। এছাড়াও চট্টগ্রাম-কক্সবাজারসহ নানা জায়গা তাদের নামে এমন বহু সম্পদ রয়েছে। ২০১৮ সালে অনুসন্ধান শুরু করে তাদের এসব অবৈধ সম্পদের তথ্য পেয়েছে দুদক।
 
প্রদীপের তথ্য মতে, কক্সবাজারে ২টি হোটেল, ফ্ল্যাট আর দুটি গাড়ি রয়েছে তাদের। স্ত্রীর নামে চট্টগ্রামের বোয়ালখালীতে আছে মৎস্য খামার। সেখান থেকে বছরে ১ কোটি টাকা আয় হয়। আর সর্বমোট ৩ কোটি ৫৯ লাখ ৫১ হাজার টাকার বৈধ সম্পদ দেখানো হয়।
 
কিন্তু দুদকের অনুসন্ধানে বেরিয়ে আসে অবৈধ সম্পদের পাহাড়। এর মধ্যে ভারতের আগরতলা আর অস্ট্রেলিয়ায় বাড়িও রয়েছে প্রদীপের। কক্সবাজারে আছে মৎস খামার। চট্টগ্রামে একাধিক ফ্ল্যাট ও ব্যবসা রয়েছে। এছাড়া বিদেশে বিপুল পরিমাণ টাকাও পাচার করেছেন তিনি।   
 
এমনকি চট্টগ্রাম নগরের মুরাদপুরে আপন বোনের জমি দখল করে স্থাপনা নির্মাণের অভিযোগও আছে প্রদীপের বিরুদ্ধে।
 
এ বিষয়ে দুদক কর্মকর্তারা বলেন, অনুসন্ধান শেষ হলে প্রদীপ-দম্পতির আরো অবৈধ সম্পদের খোঁজ পাওয়া যাবে।

সর্বশেষ সংবাদ

অন্তরালের খবর এর আরো খবর