রোহিঙ্গা সমস্যা সৃষ্টি করেছে মিয়ানমার : পররাষ্ট্রমন্ত্রী

পররাষ্ট্রমন্ত্রী একে আবদুল মোমেন বলেছেন, আমরা প্রতিবেশী রাষ্ট্র ভারত, চীন, থাইল্যান্ডসহ সবদেশে গেছি। সবাই স্বীকার করেছে রোহিঙ্গা সমস্যা সৃষ্টি করেছে মিয়ানমার। তাই সমস্যা নির্মূলও করবে তারা। সবাই বলেছে, স্থায়ী সমাধান হলো লোকগুলো ফিরিয়ে নেওয়া। সুতরাং সেইদিন থেকে এখনও আমাদের পররাষ্ট্রনীতি ড্রাইভার সিটে আছে। আমেরিকা বলেন, ইউরোপ বলেন- সবাই একবাক্যে বলছে মিয়ানমারকেই রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নিতে হবে।
 
তিনি বলেন, পৃথিবীতে কোনো দেশই ১১ লাখ মানুষকে এইভাবে জায়গা দেবে না থাকার জন্য। কিন্তু মানবিক কারণে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তাদের আশ্রয় দিয়েছেন। প্রথম দিকে কেউ সহায়তা করেনি। কিন্তু আমাদের সরকার এই রোহিঙ্গাদের সার্বিক সহায়তা করেছে।
 
রোববার (১০ জানুয়ারি) বেলা ২টায় চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের বঙ্গবন্ধু মিলনায়তনে মেজর (অব.) মোহাম্মদ এমদাদুল ইসলামের দুটি বইয়ের প্রকাশনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।
 
অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. শিরীণ আখতার। বিশেষ অতিথি ছিলেন শিক্ষা উপমন্ত্রী ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল।
 
রোহিঙ্গাদের ফেরত পাঠানোর জন্য যে ধরনের পদক্ষেপ নেওয়া দরকার, তার সব পদক্ষেপ বাংলাদেশ সরকার গ্রহণ করেছে উল্লেখ করে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, এ বিষয়ে মিয়ানমারের সঙ্গে আলোচনা অব্যাহত আছে। তাদের বলা হয়েছে, তাদের দেশে উন্নয়ন হচ্ছে। এ দেশেও উন্নয়ন হচ্ছে। যদি এই লোকগুলোকে নিয়ে যাওয়া না হয়, তাহলে এই দুই দেশ তথা এই অঞ্চলে অশান্তি সৃষ্টি হবে। তা কোনো দেশের জন্য মঙ্গলজনক নয়।
 
‘১৯৭৮ ও ১৯৯২ সালে দেখেছি, তখন অনেক রোহিঙ্গা বাংলাদেশে এসেছিল আবার নিয়েও গেছে। ১৯৯২ সালে প্রায় ২ লাখ ৫৩ হাজার রোহিঙ্গা দেশে আসে। পরবর্তীতে আলোচনা মাধ্যমে তারা ২ লাখ ৩০ হাজারকে নিয়ে যায়।’ বলেন মন্ত্রী।
 
তিনি আরো বলেন, ইতিহাস আছে তারা নিয়ে গেছে, সেজন্য আমরা আশাবাদী বর্তমানে ১১ লাখ রোহিঙ্গাকেও নিয়ে যাবে। কিন্তু কখন নিয়ে যাবে, তা বলা মুশকিল। বাংলাদেশ সরকার রোহিঙ্গাদের ফেরত পাঠানোর জন্য যে ধরনের পদক্ষেপ নেওয়া দরকার সব নিয়েছে।

সর্বশেষ সংবাদ

মানবাধিকার এর আরো খবর