স্ত্রী-কন্যাসহ করোনামুক্ত বিটিভির মহাপরিচালক

বাংলাদেশ টেলিভিশনের মহাপরিচালক এম এম হারুন অর রশিদ জানালেন, পরিবারের অন্য সদস্যদের সঙ্গে দ্বিতীয় ফলোআপ পরীক্ষায় তার করোনা রেজাল্ট নেগেটিভ এসেছে।

তিনি বলেন, “আল্লাহর অশেষ রহমতে সবার দোয়ায় আমাদের তিনজনের দ্বিতীয় ফলোআপ টেস্টেও কভিড-১৯ নেগেটিভ রেজাল্ট এসেছে।”

গত ৪ মে হারুন অর রশিদ জানান, তার ও স্ত্রী নাহীদ সুলতানার শরীরে করোনা ধরা পড়েছে। তাদের পরীক্ষার রেজাল্ট ছিল পজিটিভ। পরে জানা যায়, তাদের মেয়ে নিকিতা নন্দিনীও করোনা আক্রান্ত।

সোমবার রাতে এক ফেইসবুক পোস্টে তিনি লেখেন, “করোনাকে মোকাবিলা করতে আমরা সাহস হারাইনি। বাসায় থেকে ডাক্তারের নির্দেশনা অনুযায়ী চিকিৎসা নিয়েছি।”

 

তিনি ওষুধের নাম উল্লেখের নিজের অসুস্থতার বর্ণনা দেন এভাবে, “আমাদের জ্বর ছিল। ছিল কাশি এবং ছিল খাবারে অরুচি। সামান্য শ্বাসকষ্ট হলেও হাসপাতালে যেতে হবে। শ্বাসকষ্টের চিকিৎসা বাসায় সম্ভব না। আল্লাহর রহমতে আমাদের তিনজনের মধ্যে কারোরই শ্বাসকষ্ট এবং ডায়রিয়া ছিল না। আমি আমার ব্লাডসুগার কন্ট্রোলে রেখেছি। ব্যায়াম করেছি। এবং রৌদ্র গায়ে মেখেছি। প্রচুর প্রোটিন খাওয়ার চেষ্টা করেছি। সবসময় গরম পানি খেয়েছি এবং খাচ্ছি। গরমপানি দিয়ে দিনে ৩/৪ বার গড়গড়া করেছি। নানা উপাচার মিশিয়ে নাকেমুখে গরমপানির ভাপ নিয়েছি।”  

আরও লেখেন, “আমার স্ত্রী নাহীদ সুলতানা নিজের কভিড-১৯ অসুস্থতাকে উপেক্ষা করে একেবারে একা (আমাদের বাসায় কাজের লোক নেই ২৫ মার্চ থেকে) আমাদের সেবাযত্ন করেছে। করছে। নানা ধরনের মিশ্রণ, ক্বাথ বানিয়ে আমাদের খাওয়াচ্ছে। লেবু পানি, ফল, ফলের জুস, তূলসীপাতা, আদা, কালোজিরা, মধু, ডিম, মাছ, মাংস ইত্যাদি খাইয়ে সে আমাদের ইমিউন সিস্টেম অ্যাকটিভ এবং স্ট্রং রাখতে যা যা করা সম্ভব করেছে।”

হারুন অর রশিদ এই সময়ে পাশে থাকার জন্য চিকিৎসক, বন্ধু ও স্বজনদের ধন্যবাদ জানান।

সর্বশেষ সংবাদ