রাজধানীতে আরো রেড জোন-ছুটি ঘোষণা হবে

প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) মহামারী রোধে রাজধানীতে কয়েকটি এলাকায় ছোট আকারে রেড জোন ঘোষণা করা হবে। রেড জোন এলাকার বাসিন্দাদের জন্য সাধারণ ছুটিও ঘোষণা করা হবে। ২৪ জুন, বুধবার গণমাধ্যমের কাছে এই তথ্য জানান জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন।
 
এ বিষয়ে ফরহাদ হোসেন বলেন, ঢাকায় অনেক গুরুত্বপূর্ণ অফিস রয়েছে। এখানে অনেক শিল্প-কারখানা আছে। আবার ম্যানেজমেন্টও ঠিক করতে হচ্ছে। আশা করছি, এখানেও বেশ কয়েকটি জায়গায় ছোট ছোট আকারে রেড জোন ঘোষণা করা হবে। তালিকা পেলেই আমরা ছুটি ঘোষণা করবো।
 
তিনি আরো বলেন, প্রশাসনিক বিষয় হওয়ায় রেড জোনের তালিকা ও ছুটির ঘোষণার আদেশ জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় থেকে হচ্ছে। তবে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় এর সঙ্গে যুক্ত থাকে, তারা যাচাই-বাছাই করে।
 
রেড জোন ঘোষণার প্রক্রিয়ার বিষয়ে প্রতিমন্ত্রী বলেন, প্রথমে সিভিল সার্জন তার এলাকা অ্যাসেস করবেন। এরপর জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপারের সঙ্গে আলাপ করবেন। একই সঙ্গে সংসদ সদস্যসহ স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের সঙ্গে আলাপ করবেন। সিদ্ধান্তে আসার পর তারা স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অনুমতি চাইবে। স্বাস্থ্য অধিদপ্তর অনুমতি দিলে তারা আমাদের কাছে আবেদন জানাবে ছুটি ঘোষণার জন্য।
 
এর আগে ২১ জুন মধ্যরাতে ১০ জেলার ২৭টি এলাকা এবং পরদিন আরো পাঁচ জেলার ১২ এলাকাকে রেড জোন ও সাধারণ ছুটি ঘোষণা করে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়। এরপর সর্বশেষ ২৩ জুন, মঙ্গলবার দেশের আরো জেলার ৭টি এলাকাকে রেড জোন ঘোষণা করা হয়। রাজধানী ঢাকায় করোনার সংক্রমণ বেশি থাকলেও এখনো রেড জোন ঘোষণা করা হয়নি। শুধুমাত্র পূর্ব রাজাবাজার এলাকাকে রেড জোন ঘোষণা করে সেখানে পরীক্ষামূলক লকডাউন বাস্তবায়ন করা হচ্ছে।
 
প্রসঙ্গত, দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে আরো ৩৭ জন মারা গেছেন। এ পর্যন্ত মারা গেলেন ১৫৮২ জন। নতুন করে করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছেন ৩৪৬২ জন। এপর্যন্ত শনাক্ত হলেন ১ লাখ ২২ হাজার ৬৬০ জন। আজ সুস্থ হয়ে উঠেছে ২০৩১ জন। এ পর্যন্ত সুস্থ হয়েছেন ৪৯ হাজার ৬৬৬ জন।
 
২৪ জুন, বুধবার দুপুর আড়াইটার দিকে করোনা পরিস্থিতি নিয়ে অনলাইনে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের নিয়মিত স্বাস্থ্য বুলেটিনে এ তথ্য জানিয়েছেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা।

রাজধানী এর আরো খবর