বিশ্ব মাতৃদুগ্ধ সপ্তাহ শুরু

আজ দেশে পালিত হচ্ছে ‘মাতৃদুগ্ধ দিবস’। সেই সঙ্গে আজ থেকে শুরু হচ্ছে ‘বিশ্ব মাতৃদুগ্ধ সপ্তাহ’। এই দিবস বা সপ্তাহ পালনের উদ্দেশ্য হচ্ছে শিশুদের মায়ের বুকের দুধ খাওয়ানোর কৃষ্টি পুনরুদ্ধার।

ওয়ার্ল্ড এলায়েন্স ফর ব্রেস্ট ফিডিং একশন এর উদ্যোগে এবং ইউনিসেফ এর সহযোগিতায় ১৯৯২ সাল থেকে প্রতি বছর এক থেকে সাত আগস্ট পর্যন্ত পালিত হয় বিশ্ব মাতৃদুগ্ধ সপ্তাহ।

 

বাংলাদেশেও প্রতি বছর এ দিবস ও সপ্তাহ বেশ গুরুত্বের সঙ্গে পালিত হয়ে আসছে। এই দিবস ও সপ্তাহ পালনকালে শিশুদের মায়ের দুধ খাওয়ানোর ব্যাপারে উদ্বুদ্ধ করার জন্য নানা কর্মসূচির আয়োজন করা হবে। অনুষ্ঠিত হবে শোভাযাত্রা ও উদ্বুদ্ধকরণ সভা।

মায়ের দুধ শিশুদের সর্বোৎকৃষ্ট খাবার। বলা হয়ে থাকে মায়ের দুধ সৃষ্টিকর্তার পক্ষ থেকে সমগ্র মানবজাতির জন্য একটি বিশেষ আশীর্বাদ। চিকিৎসা বিজ্ঞানও মায়ের দুধকে শিশুদের সর্বোৎকৃষ্ট খাবার হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছে। শিশু ভূমিষ্ট হওয়ার পর তার প্রথম খাবারই হচ্ছে মায়ের দুধ। শুধু তাই নয়, শিশু পৃথিবীতে এসে প্রথম মায়ের যে ‘শাল দুধ’ খায়, সেটা হচ্ছে তার সারাজীবনের জন্য রোগ প্রতিষেধক টিকা।

আসল কথা হলো, মায়ের দুধের প্রকৃত মূল্যায়ন পৃথিবীর সবকিছুর উর্ধে। শিশুর পুষ্টি, বেঁচে থাকা এবং বেড়ে ওঠার জন্য মায়ের দুধই সর্বোত্তম ভূমিকা রাখে। শিশু স্বাস্থ্যের উন্নয়ন এবং শিশুদের বিভিন্ন রোগ কমানোর জন্য যেসব জনস্বাস্থ্য কার্যক্রম পরিচালনা করা হয় যেমন টিকাদান, ডায়রিয়া নিয়ন্ত্রণ, পরিবার পরিকল্পনা এবং অপুষ্টি দূরীকরণ এইসব কার্যক্রমের সফলতায় সাহায্য করতে পারে মায়ের দুধ।

 

তাছাড়া, মায়ের দুধ মা ও শিশুর মধ্যে এক মমতার গভীর সম্পর্ক গড়ে তোলে।