সিপিবি নেতা সৈয়দ আবু জাফর আহমেদ আর নেই

চলে গেলেন বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির (সিপিবি) প্রেসিডিয়াম সদস্য ও সাবেক সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আবু জাফর আহমেদ। (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)। মঙ্গলবার দিবাগত রাত সাড়ে ১২টার দিকে তিনি ঢাকায় ইউনাইটেড হাসপাতালে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৬৫ বছর। তার মৃত্যুর খবর তার পরিবার নিশ্চিত করেছেন। তার মৃত্যুতে সিলেটের মৌলভীবাজারে শোকের ছায়া নেমে এসেছে। তিনি মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার রঘুনাথপুরের কৃতি সন্তান। পরিবার সূত্রে জানা গেছে, সৈয়দ আবু জাফর আহমেদের মরদেহ বুধবার সকাল ১০টায় মুক্তিভবনে সিপিবি কার্যালয়ে নেয়া হবে। দলীয় কার্যালয়ে নিহতের মরদেহ এক ঘণ্টা রাখা হবে। পরে সেখান থেকে তাকে জন্মস্থান মৌলভীবাজারে নিয়ে যাওয়া হবে। সেখানেই তাকে দাফন করা হবে। দীর্ঘদিন ধরে কিডনির রোগে ভুগছিলেন সিপিবির এই নেতা। এর আগে তিনি ঢাকার পিজি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন। অত্যন্ত নিষ্ঠা ও সততার মাধ্যমে সৈয়দ আবু জাফর আহমেদ সিপিবির কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেছেন। মৌলভীবাজার থেকে প্রকাশিত সাপ্তাহিক মনুবার্তা পত্রিকার সম্পাদক হিসেবে দীর্ঘদিন দায়িত্ব পালন করেছেন তিনি। ১৯৫৪ সালের ১১ জুলাই মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জে জন্ম হয় তার। ১৯৬৯ সালে মৌলভীবাজার সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এসএসসি এবং মৌলভীবাজার সরকারি কলেজ থেকে স্নাতক ডিগ্রি লাভ করে ঢাকা সিটি ল কলেজে ভর্তি হন সৈয়দ আবু জাফর আহমেদ। এরপর উচ্চতর পড়াশোনার জন্য ১৯৭৯ সালে জার্মানি যান। ছাত্রজীবন থেকেই প্রগতিশীল ছাত্রসংগঠন ছাত্র ইউনিয়নের সঙ্গে সম্পৃক্ত ছিলেন আবু জাফর আহমেদ। ছাত্রজীবনেই অন্যায়ের প্রতিবাদ করায় কয়েকবার কারাবরণ করেন। ১৯৭২ সালে সিলেটে চা শ্রমিক হত্যার প্রতিবাদ করতে গিয়ে তিনি প্রথম কারাবরণ করেন। জেল থেকে ছাড়া পাওয়ার পরপরই ১৯৭৩ সালের ফেব্রুয়ারিতে ফের গ্রেফতার হন। ১৯৭৫ সালে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব হত্যাকাণ্ডের প্রতিবাদ করায় ফের গ্রেফতার হন এবং বিনাবিচারে এক বছর জেলজীবন কাটাতে হয় তাকে। প্রগতিশীল রাজনীতির পাশাপাশি শিল্প-সাহিত্য-সংস্কৃতি অঙ্গনেও বেশ সক্রিয় ছিলেন সৈয়দ জাফর। ছাত্রজীবন থেকেই সাংবাদিকতার সঙ্গে সম্পৃক্ত ছিলেন।

জন্ম ও মৃত্যু এর আরো খবর