বিরল রোগে আক্রান্ত মুক্তামণি আর নেই

সাতক্ষীরায় বিরল রোগে আক্রান্ত মুক্তামণি মারা গেছে। বুধবার সকাল ৭টার দিকে সদর উপজেলার কামারবায়সা গ্রামের নিজ বাড়িতেই মৃত্যু হয় ১২ বছর বয়সী শিশুটির।

মুক্তামনির বাবা ইব্রাহিম হোসেন বলেন, ‘গত কয়দিন ধরেই মুক্তার অবস্থা খারাপ হচ্ছিল। আজ ভোরে বমি শুরু হয়। একবার পানি খেতে চাইল। ওর দাদি গেল পানি আনতে। পানি আনতে আনতে সব শেষে।’

উল্লেখ্য, সাতক্ষীরার ১২ বছরের শিশু মুক্তামণি দেড় বছর বয়সে হেমানজিওমা রোগে আক্রান্ত হয়েছিলো। তার বিরল রোগের কারণে সংবাদমাধ্যমে গতবছর তার সম্পর্কে ব্যাপকভাবে খবর প্রচার পায়। এরপর ঢাকায় কয়েকমাস ধরে তার চিকিৎসা চলে।

কিছুদিন আগে মুক্তামণির বাবা মোহাম্মদ ইব্রাহিম হোসেন জানিয়েছেন, মেয়ের চিকিৎসার জন্য ছয়মাস ধরে ঢাকায় অবস্থানের পর গত ২২ ডিসেম্বর তারা হাসপাতাল থেকে ছুটি পেয়ে বাড়ি ফিরে যায়। এরপর থেকে কিছুদিন মুক্তামণি কিছুটা ভালো থাকলেও, তার অবস্থা আবার খারাপ হয়ে যায়।

গত বছর জুলাই মাসের প্রথম সপ্তাহে মুক্তামণির বিরল রোগের খবরটি গণমাধ্যমে এলে তখন তার চিকিৎসার ব্যয়ভার সরকারের পক্ষ থেকে বহন করার খবর আসে সংবাদ মাধ্যমে।

এরপর ১১ জুলাই ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে ভর্তি করা হয় তাকে। সেখানে মুক্তামণির চিকিৎসায় গঠিত হয় বোর্ড। পরীক্ষা-নিরীক্ষা শেষে ধরা পড়ে মুক্তামণির হাত রক্তনালীর টিউমারে আক্রান্ত।

মুক্তামণির হাতে তিন কেজি ওজনের টিউমার হওয়ার পর চিকিৎসকরা সেটি অপসারণ করে। সে কোনদিন পুরোপুরি সেরে উঠতে পারবে না বলে সেসময় জানিয়েছিল চিকিৎসকরা।

কারণ তার শরীরের আরও গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ নষ্ট হয়ে গেছে। শিশুদের রক্তনালীর টিউমার হেমানজিওমা খুব একটা জটিল রোগ নয় বলছেন চিকিৎসকেরা। কিন্তু মুক্তামণির ক্ষেত্রে চিকিৎসার অভাবে ডান হাতের টিউমারটি মারাত্মক রূপ নেয়।

সর্বশেষ সংবাদ

জন্ম ও মৃত্যু এর আরো খবর