আজ পহেলা ফাল্গুন এবং বিশ্ব ভালোবাসা দিবস

আজ পহেলা ফাল্গুন এবং বিশ্ব ভালোবাসা দিবস। দুই উৎসবকে ঘিরে আজ জোড়া উৎসবের আমেজ। ‘আজই বসন্ত জাগ্রত দ্বারে’।
 
ষড়ঋতুর এই দেশে বাঙালি প্রতি বছরই উৎসবমুখর এই বসন্তের অপেক্ষায় থাকে। বসন্ত মানে পূর্ণতা। বসন্ত মানে নতুন প্রাণের কলরব। বসন্ত এলে গাছে গাছে ফুলে ফুলে ভরে ওঠে চারদিক। গাছে গাছে পলাশ আর শিমুলের মেলা চলে অবিরত।
 
শনিবার থেকেই দেশজুড়ে দেখা গেছে বসন্ত উৎসবের আমেজ। বিভিন্ন জায়গায় হচ্ছে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। করোনা পরিস্থিতির কারণে সীমিত পরিসরে উৎসব করার নির্দেশনা থাকলেও মানুষের বাঁধ ভাঙা উচ্ছ্বাস যেন ছড়িয়ে পড়েছে নিয়মের বেড়াজাল ডিঙিয়ে।
 
ফাল্গুনের প্রথম দিন এ বছর কিছুটা অন্য রকম। বাংলা বর্ষপঞ্জির পহেলা ফাল্গুন ও ইংরেজি মাসের ১৪ ফেব্রম্নয়ারি মিলেছে এক সুতোয়। ফলে এক দিনে দুটি উৎসব পালন করছেন এ দেশের তরুণ-তরুণীসহ সর্বস্তরের মানুষ।
 
অন্যদিকে দিনটিকে স্বৈরাচার প্রতিরোধ দিবস হিসেবেও পালন করার প্রস্তুতি নিয়েছে একাধিক সংগঠন। ১৯৮৩ সালের ১৪ ফেব্রম্নয়ারি মজিদ খান কমিশনের গণবিরোধী শিক্ষানীতি প্রত্যাখ্যান করে সচিবালয় অভিমুখী ছাত্র-জনতার মিছিলে পুলিশের গুলিতে শহীদ হন জয়নাল, জাফর, মোজাম্মেল, দিপালী, কাঞ্চনসহ অনেকে। বীর শহীদদের স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে স্বৈরাচার প্রতিরোধ দিবস পালন করা হবে।
 
এ ছাড়া বসন্ত উৎসব ও ভালোবাসা দিবসকে ঘিরে একুশের বইমেলায় প্রতি বছরই উৎসবের আমেজ তৈরি হয়। করোনার জন্য বইমেলা পিছিয়ে যাওয়ায় এবারের বসন্তে থাকছে না বইমেলায় ঘুরে বেড়ানোর আনন্দ।
 

সর্বশেষ সংবাদ

শিল্প ও সাহিত্য এর আরো খবর